মমতার সমর্থনে খুশি অমর্ত্য
jugantor
মমতার সমর্থনে খুশি অমর্ত্য

  কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা থেকে  

২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শান্তিনিকেতনের জমি দখল বিতর্কে পাশে থাকার জন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে সোমবার পাল্টা চিঠি লিখে ধন্যবাদ জানালেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন।

বাঙালির গর্ব নোবেলজয়ীর ব্যক্তিগত একটি সমস্যা ও সংকট ব্যস্ততার মধ্যেও উপলব্ধি করার জন্য মমতাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এদিনই শান্তিনিকেতনের বোলপুরের গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দেন মমতা।

আজ বিজেপির বিরুদ্ধে পদযাত্রা করারও কথা রয়েছে তার। ঠিক সেদিনই প্রতীচী বিতর্ক নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন অমর্ত্য সেন। তিনি লিখেছেন, ‘চিঠিতে আপনার সমর্থনের কথা জানতে পেরে আমি খুব খুশি।

এটা শুধু আমাকে স্পর্শ করেনি, আশ্বস্তও হয়েছি। আপনার ব্যস্ত জীবনের মধ্যেও আক্রান্ত মানুষের জন্য আপনি সময় বের করেছেন। আপনার শক্তিশালী কণ্ঠ, যা ঘটছে তা নিয়ে আপনার উপলব্ধি আমার কাছে শক্তির উৎসস্বরূপ।’

বিশ্বভারতীর জমি দখল বিতর্কে পাশে দাঁড়িয়ে শুক্রবারই মমতাকে নিজেকে ‘বোন’ এবং ‘বন্ধু’ উল্লেখ করে চিঠি লিখেছিলেন নোবেলজয়ী এ অর্থনীতিবিদ। এদিন তারই জবাব দিয়ে কার্যত বিজেপির আধিপত্যবাদ ও সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে নিজের লড়াইয়ের কথা আরও একবার স্পষ্ট করেছেন অমর্ত্য সেন।

অন্যদিকে এদিন শান্তিনিকেতনে প্রশাসনিক কর্মসূচি নিয়ে এসে সেখানেও নাম না করে বিজেপি ও বিশ্বভারতীর ভিসির তীব্র নিন্দা করেন মমতা। একই সঙ্গে বিশ্বভারতীর ভেতর দিয়ে যে রাস্তা গিয়েছে সেটি এদিন ফেরত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

আগের ভিসি স্বপন দত্তের অনুরোধে রাজ্য সরকার এই রাস্তাটি বিশ্বভারতীর হাতে দিয়েছিল। কিন্তু সেই রাস্তাটি নিয়ে বর্তমান ভিসি গাড়ি চলাচল নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। এমনকি রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছবি তোলা নিষিদ্ধ করেছেন ভিসি।

শান্তিনিকেতনের আশ্রমিকদের অভিযোগে ফের শান্তিনিকেতন কালিসায়র থেকে উপাসনা মন্দির পর্যন্ত রাস্তাটি ফেরত নিয়ে অমর্ত্যকে হেনস্থার পাল্টা জবাব দিলেন মমতা। ঢাকার মানিকগঞ্জ এলাকার সেন পরিবারের সন্তান অমর্ত্যরে বাবা খিতিমোহন সেনকে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শান্তিনিকেতনে জমি দিয়েছিলেন।

ছেলেবেলা থেকে সেখানেই অমর্ত্য থাকলেও এখন শিক্ষকতার জন্য তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকেন। প্রতি বছর অবশ্য তিনি পৌষমেলায় যোগ দিয়ে পুরনো বন্ধু ও সহপাঠীদের সঙ্গে সময় কাটান।

মমতার সমর্থনে খুশি অমর্ত্য

 কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা থেকে 
২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শান্তিনিকেতনের জমি দখল বিতর্কে পাশে থাকার জন্য পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে সোমবার পাল্টা চিঠি লিখে ধন্যবাদ জানালেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন।

বাঙালির গর্ব নোবেলজয়ীর ব্যক্তিগত একটি সমস্যা ও সংকট ব্যস্ততার মধ্যেও উপলব্ধি করার জন্য মমতাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এদিনই শান্তিনিকেতনের বোলপুরের গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে প্রশাসনিক বৈঠকে যোগ দেন মমতা।

আজ বিজেপির বিরুদ্ধে পদযাত্রা করারও কথা রয়েছে তার। ঠিক সেদিনই প্রতীচী বিতর্ক নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখলেন অমর্ত্য সেন। তিনি লিখেছেন, ‘চিঠিতে আপনার সমর্থনের কথা জানতে পেরে আমি খুব খুশি।

এটা শুধু আমাকে স্পর্শ করেনি, আশ্বস্তও হয়েছি। আপনার ব্যস্ত জীবনের মধ্যেও আক্রান্ত মানুষের জন্য আপনি সময় বের করেছেন। আপনার শক্তিশালী কণ্ঠ, যা ঘটছে তা নিয়ে আপনার উপলব্ধি আমার কাছে শক্তির উৎসস্বরূপ।’

বিশ্বভারতীর জমি দখল বিতর্কে পাশে দাঁড়িয়ে শুক্রবারই মমতাকে নিজেকে ‘বোন’ এবং ‘বন্ধু’ উল্লেখ করে চিঠি লিখেছিলেন নোবেলজয়ী এ অর্থনীতিবিদ। এদিন তারই জবাব দিয়ে কার্যত বিজেপির আধিপত্যবাদ ও সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে নিজের লড়াইয়ের কথা আরও একবার স্পষ্ট করেছেন অমর্ত্য সেন।

অন্যদিকে এদিন শান্তিনিকেতনে প্রশাসনিক কর্মসূচি নিয়ে এসে সেখানেও নাম না করে বিজেপি ও বিশ্বভারতীর ভিসির তীব্র নিন্দা করেন মমতা। একই সঙ্গে বিশ্বভারতীর ভেতর দিয়ে যে রাস্তা গিয়েছে সেটি এদিন ফেরত নিয়েছে রাজ্য সরকার।

আগের ভিসি স্বপন দত্তের অনুরোধে রাজ্য সরকার এই রাস্তাটি বিশ্বভারতীর হাতে দিয়েছিল। কিন্তু সেই রাস্তাটি নিয়ে বর্তমান ভিসি গাড়ি চলাচল নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। এমনকি রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছবি তোলা নিষিদ্ধ করেছেন ভিসি।

শান্তিনিকেতনের আশ্রমিকদের অভিযোগে ফের শান্তিনিকেতন কালিসায়র থেকে উপাসনা মন্দির পর্যন্ত রাস্তাটি ফেরত নিয়ে অমর্ত্যকে হেনস্থার পাল্টা জবাব দিলেন মমতা। ঢাকার মানিকগঞ্জ এলাকার সেন পরিবারের সন্তান অমর্ত্যরে বাবা খিতিমোহন সেনকে স্বয়ং রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর শান্তিনিকেতনে জমি দিয়েছিলেন।

ছেলেবেলা থেকে সেখানেই অমর্ত্য থাকলেও এখন শিক্ষকতার জন্য তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে থাকেন। প্রতি বছর অবশ্য তিনি পৌষমেলায় যোগ দিয়ে পুরনো বন্ধু ও সহপাঠীদের সঙ্গে সময় কাটান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন