লন্ডনে বসে বড় বড় কথা বলছেন নওয়াজ

পাকিস্তানের পরিস্থিতি নীরব দর্শক হয়ে দেখব না * ইমরান খান নয়, তাকে যারা ক্ষমতায় এনেছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই
 যুগান্তর ডেস্ক 
১০ অক্টোবর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
লন্ডনে বসে বড় বড় কথা বলছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। কখনও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারের বিরুদ্ধে। আবার কখনও পাক সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে।
ফাইল ছবি

লন্ডনে বসে বড় বড় কথা বলছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। কখনও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের সরকারের বিরুদ্ধে। আবার কখনও পাক সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে।

শুধু তাই নয়, সরকার ও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে জোট বেঁধে আন্দোলনও শুরু করেছেন পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) এ নেতা। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার ইমরান খান ও সেনাবাহিনীকে টার্গেট করে বক্তব্য দিয়েছেন নওয়াজ।

লন্ডন থেকে ভার্চুয়াল কনফারেন্সের মাধ্যমে দলের সংসদ সদস্যদের এক সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তান এখন সন্ধিক্ষণের মুখোমুখি। দেশের জনগণ বিরাট সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।’

কারও নাম উল্লেখ না করেই নওয়াজ বলেন, ইমরান খানকে যারা ক্ষমতায় এনেছে, তাদের জবাবদিহির আওতায় আনা উচিত। এটি ছাড়া দেশ বা সরকার কোনোটাই সুষ্ঠুভাবে চলবে না।’

পাকিস্তানের বর্তমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ও দেশটির জনগণের কষ্টের কথা বলতে গিয়ে নওয়াজ শরিফ বলেন, ‘এ অবস্থার জন্য আমি কাকে দায়ী করব? শুধু কি ইমরান খান, নাকি এ জন্য যারা সত্যিকার অর্থে দায়ী, তাদের?’

নওয়াজ শরিফ আর ও বলেন, ‘কার্যকর ও সত্যিকার পার্লামেন্ট ছাড়া একটি দেশের প্রতিষ্ঠানগুলো চলতে পারে না। এমনকি বিচার বিভাগও না। পাকিস্তানে সরকারে যারা এ ‘সমস্যা ও সংকট’ সৃষ্টি করেছে, তাদের জবাবদিহির মুখোমুখি করবেন বলে আবারও উল্লেখ করেন নওয়াজ শরিফ। ডন ও দ্য ন্যাশন।

দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হয়ে নওয়াজ শরিফ কারাগারে গিয়েছিলেন। অসুস্থতার পরিপ্রেক্ষিতে আদালতের অনুমতি নিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত বছরের নভেম্বরে তিনি লন্ডনে যান। এতদিন তিনি রাজনীতিসংক্রান্ত কোনো বক্তব্য দেননি।

কিন্তু গত মাসের শেষের দিকে ইমরানের বিরুদ্ধে ‘নিড ফর এ প্লান অব অ্যাকশন’ শীর্ষক বিরোধীদের এক আলোচনায় যোগদানের মাধ্যমে ফের রাজনীতিতে সক্রিয় হন তিনি। আলোচনার পর থেকেই ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন তেহরিক-ই ইনসাফ পার্টি (পিটিআই) জোট সরকারের বিরুদ্ধে একের পর এক তোপ দাগছেন।

সরকারের বিরোধিতার পাশাপাশি খোদ প্রভাবশালী সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে ইঙ্গিত করে বক্তব্য দেন নওয়াজ। লন্ডন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) কর্তৃক ইসলামাবাদে আয়োজিত বহুদলীয় ওই আলোচনায় নওয়াজ বলেন, ‘ইমরান খান নয়, তাকে যারা ক্ষমতায় এনেছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই। আমাদের সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার হচ্ছে এ সিলেক্টেড সরকারকে উচ্ছেদ করা, এ পদ্ধতি ধ্বংস করা।’

ইমরান খান ক্ষমতায় আসার পর থেকে তাকে সেনা সিলকশনের মাধ্যমে ক্ষমতায় বসানো হয়ে বলে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে। সেই সম্মেলন থেকেই প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের পদত্যাগ দাবি করা হয়। ঠিক হয়, বিরোধী দলগুলো, পাক রাজনীতিতে সেনা প্রভাব ও প্রাধান্যের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে আন্দোলন করবে।

এ বিরোধী জোটের নাম দেয়া হয়েছে, ‘পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট’। তাতে নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লিগ (নওয়াজ) যেমন আছে, তেমনই আছে পাকিস্তান পিপলস পার্টি। বৈঠকে সরাসরি উপস্থিত ছিলেন নওয়াজ কন্যা মরিয়ম নওয়াজ ও প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ছেলে বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি।

চীনের সাহায্যে কাশ্মীরে ক্ষেপণাস্ত্র ঘাঁটি বানাচ্ছে পাকিস্তান : ভারতীয় গোয়েন্দা ‘রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালিসিস উইং’ (‘র’)-এর এক রিপোর্টে বলা হয়েছে, পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরে চীনের সহায়তায় ক্ষেপণাস্ত্র কেন্দ্রসহ নানা সামরিক পরিকাঠামো বানাচ্ছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী।

লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (এলএসি) ভারতকে চাপে রাখতেই পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে চীন। আনন্দবাজার পত্রিকা।

গত মাসে দেশটির কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে ওই রিপোর্ট পেশ করেছে ‘র’। তাতে বলা হয়েছে, পাকিস্তান অধিকৃত কাশ্মীরের লাসাডন্না ঢোক অঞ্চলে চীনের ‘পিপলস লিবারেশন আর্মি’র (পিএলএ) সহায়তায় ‘ভূমি থেকে আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র’ উৎক্ষেপণ কেন্দ্র বানানো হচ্ছে।

বাঘ জেলায় মোতায়েন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি ব্রিগেডের সদর দফতরের অদূরের ওই ক্ষেপণাস্ত্র ঘাঁটি বানানোর কাজে ১৩০ জন পাকিস্তান সেনা এবং ৪০-এর মতো অসামরিক নির্মাণকর্মী জড়িত রয়েছেন বলেও প্রতিবেদনটিতে জানানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন