শ্রীমঙ্গলে পটকা মাছ খেয়ে বউ শাশুড়ির মৃত্যু

 শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি 
২৫ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শ্রীমঙ্গলে বিষাক্ত পটকা মাছ খেয়ে বউ-শাশুড়ির মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার উত্তর ভাড়াউড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তারা হলেন উত্তর ভাড়াউড়া গ্রামের জয়নাল আবেদিনের স্ত্রী সাহিদা বেগম ও তার পুত্রবধূ নুরুন নাহার। এ ঘটনায় নুরুন নাহারের শিশুপ্ত্রু নাঈম (৮) গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বিষাক্ত মাছ খেয়ে একই পরিবারের দু’জনের মৃত্যুর ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইন্সটিটিউটের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, পটকা মাছে ‘নিউরোটক্সিন’ জাতীয় বিষ থাকে, যার কোনো প্রতিষেধক নেই। এই মাছ খাওয়ার ফলে মানবদেহে বিষ প্রবেশ করে। এই বিষ সহজেই দেহের নার্ভাস সিস্টেম ও হৃদপিণ্ড বিকল করে দেয়- যে কারণে মানুষ মারা যায়। শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আবদুছ ছালেক যুগান্তরকে জানান, প্রাথমিকভাবে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে ধারণা করা হচ্ছে পটকা মাছ খাওয়ার কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে বিস্তারিত জানা যাবে। বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল ও প্রজাতি ভেদে এই মাছ বিষাক্ত নাও হতে পারে। পটকা মাছের সবচেয়ে বিপজ্জনক অংশ এর লিভার।

মাছটির লিভারে যে বিষ থাকে তা প্রাণঘাতী পটাশিয়াম সায়নাসাইডের চেয়ে ১২শ’ গুণ বিষাক্ত। এ মাছে রয়েছে ক্ষতিকারক টিটিএস বা টেট্রোডোটোক্সিন বিষ। আর এ কারণে মাছটির লিভারের সামান্য অংশও যদি মাছটিতে থেকে যায় তাহলে তা বিষাক্ত হয়ে পড়ে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন