চালনা পৌরসভায় ভোট গ্রহণকালে বিএনপি প্রার্থীর মৃত্যু

ফল ঘোষণা স্থগিত
 খুলনা ব্যুরো  
২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

ভোট চলাকালে মারা গেছেন খুলনার চালনা পৌরসভার বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও দাকোপ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবুল খয়ের খান (৬০)।

সোমবার বিকাল ৩টা ৫০মিনিটে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিনি ২২ ডিসেম্বর রাত থেকে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

জানা যায়, এদিন সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ওই পৌরসভায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে আবুল খয়ের খানের মৃত্যুর খবর অসে। এ কারণে ফল ঘোষণা সাময়িক স্থগিত রাখার কথা জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। 

নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী সমর্থকদের বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখল করে জোর করে ভোট দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিএনপি প্রার্থী আবুল খয়ের খানের নির্বাচনের প্রধান এজেন্ট আব্দুল মান্নান খান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ড. অচিন্ত্য কুমার বিশ্বাস দুপুরে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন।

মান্নান খান অভিযোগ করে বলেন, ভোটের নামে তামাশা হয়েছে। আওয়ামী লীগের কর্মীরা বুথে ঢুকে তাদের দলীয় প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র সনত কুমার বিশ্বাসকে ভোট দিয়েছে।

প্রিজাইডিং অফিসারের নিকট অভিযোগ করেও কোনো কাজ হয়নি। ফলে আমরা ভোট বর্জন করতে বাধ্য হয়েছি। 

জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট শফিকুল আলম মনা অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থীর পক্ষে জোর করে ভোট নেয়ার সংবাদ পেয়ে আমাদের প্রার্থী মারা গেছেন। নির্বাচন চলাকালে একজন প্রার্থীর মৃত্যুবরণ করায় পুনরায় ভোটগ্রহণের দাবি জানান তিনি। 

ভোট বর্জন করা স্বতন্ত্র প্রার্থী (জগ মার্কা) ড. অচিন্ত্য কুমার মন্ডল বলেন, নির্বাচনে মাত্র এক থেকে দেড় ঘণ্টা ভোট গ্রহণ হয়েছে। আওয়ামী লীগের কর্মীরা বুথে ঢুকে জোর করে ভোট দিয়েছে।

বুথের সামনে আমার এজেন্টদের হুমকি দিয়ে বসিয়ে রাখা হয়েছে। তাদের কথা বলতেও দেয়া হয়নি। এছাড়া দীর্ঘ দুই ঘণ্টা আমার ‘জগ’ প্রতীক কম্পিউটারের স্ক্রিনেও দেখা যায়নি।

তিনি বলেন, প্রিজাইডিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েও কোনো কাজ হয়নি। শেষ পর্যন্ত দুপুর ২টায় আমি ভোট বর্জন করতে বাধ্য হয়েছি।

তবে অভিযোগ মিথ্য দাবি করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সনত কুমার বিশ্বাস বলেন, ভোট সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হচ্ছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন