শীতের ফুল গাঁদা

 হাসান মাহমুদ রিপন 
০৮ ডিসেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
ছবি সংগৃহীত
ছবি সংগৃহীত

শীতের অন্যতম জনপ্রিয় ফুল হল গাঁদা। শীতকালেই গাঁদা ফুলটি দেখতেও দারুণ এবং বেশি দেখা যায়। অনেকে ‘গেন্দা’ ফুলও বলে থাকে। এর ইংরেজি নাম ‘মেরিগোল্ড’। গাঁদা ফুলের বিভিন্ন প্রজাতি যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা রাজ্য এবং আমেরিকার মেক্সিকো, আর্জেন্টিনায় উৎপত্তি হয়েছে। আমাদের দেশে শহর-বন্দর ও গ্রামাঞ্চলে অতি প্রাচীন থেকেই এ ফুল ছড়িয়ে আছে।

গাঁদার এত জনপ্রিয়তা কেন- তা বিশ্লেষণ করে জানা যায়, এ ফুলের চাষপদ্ধতি অপেক্ষাকৃত সহজ, খরচের তুলনায় অধিক লাভজনক, দীর্ঘকালীন সজীবতা, বাগানের শোভাবর্ধন, রং, বর্ণবৈচিত্র্য ও কোমলতা সর্বশ্রেণির মানুষের কাছে মনোমুগ্ধকর ও তৃপ্তিকর। তাছাড়া এ ফুল শুধু বাগানের সৌন্দর্যবর্ধনেই শীর্ষস্থানীয় নয় বরং উৎসব অনুষ্ঠানে, গৃহসজ্জায়, শ্রদ্ধা জানাতে, হিন্দুদের পূজাপার্বণে, বিভিন্ন জাতীয় দিবসে ফুলের তোড়া ও মালা বানাতে ব্যবহার হয়ে আসছে বলেই গাঁদার জনপ্রিয়তা এত সর্বজনবিদিত।

গাঁদা ফুলের প্রজাতি রয়েছে প্রায় ২০টি। কিন্তু সব প্রজাতি গুরুত্বপূর্ণ নয়। উদ্যানে ব্যবহার, জনপ্রিয়তা, চাষ ও চাহিদা অনুযায়ী আমাদের দেশে দু’প্রজাতির গাঁদা চাষাবাদ হয়ে থাকে। যেমন একটি হল- আফ্রিকান গাঁদা এবং অপরটি ফরাসি গাঁদা।

আফ্রিকান তিউনিশিয়া থেকে এ প্রজাতির গাঁদা ইউরোপে ছড়িয়ে পড়েছে বিধায় একে আফ্রিকান গাঁদা বলে অভিহিত করে। এ প্রজাতির ফুলগুলো বেশ বড় হয় এবং গাছ অত্যন্ত আকর্ষণীয়। এ প্রজাতির গাঁদা হলুদ, বাসন্তী, কমলা, সোনালি, সাদা বর্ণের এক রঙা ফুল হয়ে থাকে।

এসব গাঁদা জমিতে এবং টবে চাষ করা হয়। এ জাতে সিঙ্গেল ও ডাবল এছাড়া কানের্শন ও ক্রিসেনথিমাম সদৃশ্য ফুল ফোটে। আফ্রিকান প্রজাতির গাঁদার রয়েছে অনেক নাম। এগুলোর মধ্যে অন্যতম বিউটি অরেঞ্জ, ফাস্ট হোয়াইট, বিউটি গোল্ড, ক্রেকারজেক, ক্লাইমেক্স গোল্ড, ডায়ামন্ড জুবিলি, ইয়োলো সুপ্রিম, ট্রেসবিয়েন অরেঞ্জ, অ্যাপোলো, ভাইকিং, ফার্স্টলেডি, কিউপিউ, মি. মুনলাইট, গোল্ডেন এইজ, স্পান গোল্ড ইত্যাদি।

অপরদিকে অন্য প্রজাতি হল ফরাসি। এ প্রজাতি ফুলটি একবর্ষজীবী। এ গাঁদাটির পাতা গাঢ় সবুজ বর্ণের এবং ফুল আফ্রিকান গাঁদার চেয়ে আকারে ছোট। কিন্তু সংখ্যা অনেক বেশি হয় এবং আগাম ফুল ফোটে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে এ ফুল ফোটা অব্যাহত থাকে। এ গাঁদা ফিকে লাল থেকে গাঢ় লাল পর্যন্ত নানা রঙের হয়ে থাকে। এছাড়া হলুদ বা দু’রঙা ফুলও দেখা যায়। যেমন হলুদে ফুলের ফোটার ওপর ছিটেফোঁটায় ছোপ ছোপভাবে লাল রং মেশানো থাকে। ফরাসি জাতের গাঁদারও বেশকিছু নাম রয়েছে। তা হল- বোনাজা ফ্লেইম, হারমুনি, অরেঞ্জ বয়, স্প্রে বয়, কারমেন, ফ্রিয়েস্টা, হানিকম, গোন্ডি, ডুপ্লেক্স গোল্ড, রেডচেরি, গোল্ডেন জেম, জিপসি ডেনসার, পাসকেল ও স্টারডাস্ট ইত্যাদি।

গাঁদা সব ধরনের মাটিতে চাষ করা হয়। তবে উর্বর হওয়া মাটিতে একটু ভালো জন্মে। শীতের আমেজ না পেলে গাঁদার পুষ্পমঞ্জরি বিকশিত হয় না। সূর্যের আলো পড়ে ও উন্মুক্ত স্থানে গাঁদা ফুলের চাষ করতে হয়। গাঁদা কেবল ফুল হিসেবেই নয়, অন্যান্য ক্ষেত্রেও এর যথেষ্ট গুণাবলি রয়েছে এবং আরও রয়েছে ভেষজসমৃদ্ধ গুণাবলি। শরীরের ক্ষত ও আঘাতে গাঁদা গাছের রস প্রয়োগ করলে ক্ষতস্থান শিগগিরই আরোগ্য লাভ করে। এছাড়া হাঁস-মুরগিকে এ ফুল খাওয়ালে এদের ডিমে হলুদ অংশের উৎকর্ষতা বৃদ্ধি পায় অনেক। আমাদের দেশে ফরাসি গাঁদার চেয়ে আফ্রিকান গাঁদার চাষ হয় বেশি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন