আমু সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য, জেলা ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

 ঝালকাঠি প্রতিনিধি 
০৭ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:০২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এমপি ও তার কন্যা সুমাইয়া হোসেনকে নিয়ে ফেসবুক ও ম্যাসেঞ্জারে আপত্তিকর ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. রাব্বীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার রাতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় শহরের সাধনার মোড় থেকে রাব্বীকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলার উদ্ধৃতি দিয়ে ঝালকাঠি থানার ওসি মো. খলিলুর রহমান জানান, জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ মো. রাব্বী তার নিজ নামের ফেসবুক আইডি ও ম্যাসেঞ্জার দিয়ে ঝালকাঠি-২ আসনের সংসদ সদস্য আমির হোসেন আমু ও তার কন্যা সুমাইয়া হোসেন সম্পর্কে গত ৫ ডিসেম্বর রাত ১২টা ২২ মিনিটের সময় আপত্তিকর ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করে জনসমক্ষে প্রচার করে। বিষয়টি ঝালকাঠি সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান ইসরাত জাহান সোনালী দেখতে পেয়ে বাদী এবং সাক্ষীদের জানান।

ঘটনা জানতে পেরে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আ স ম মোস্তাফিজুর রহমান মনু রোববার রাতে ঝালকাঠি থানায় এজাহার দায়ের করেন। থানা কর্তৃপক্ষ এজাহারটি ২০১৮ সালের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৬, ২৯, ৩১ ও ৩৫ ধারায় এফআইআর  হিসেবে রেকর্ড করে।

মামলা রেকর্ডের পর রোববার রাত ৯টার দিকে সাধনার মোড় থেকে রাব্বীকে গ্রেফতার করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই  হযরত আলী। সোমবার দুপুর ১২টায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে শেখ রাব্বীকে আদালতে সোপর্দ করেন তদন্ত কর্মকর্তা। বিকাল ৩টায় শুনানি শেষে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এএইচএম ইমরানুর রহমান মঙ্গলবার রিমান্ড শুনানির দিন ধার্য করে রাব্বীকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

শেখ রাব্বী ঝালকাঠি পৌরসভার মেয়র মো. লিয়াকত আলী তালুকদারের দুঃসম্পর্কের নাতি। শেখ রাব্বীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে- কেউ তার ছবি ও নাম ব্যবহার করে ফেসবুক আইডি খুলে তাকে বিপদে ফেলেছে। এ বিষয়ে থানায় জিডি করতে গেলে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ না দিয়ে পুলিশ তাকে আটক করে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন