ব্রেক্সিট চুক্তি হলেও নতুন চ্যালেঞ্জ আয়ারল্যান্ডের জন্য

 সৈয়দ আতিকুর রব, আয়ারল্যান্ডে থেকে 
২৮ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ইউরোপের সঙ্গে ব্রিটেনের শেষ মুহূর্তের ব্রেক্সিট চুক্তিতে খারাপ পরিস্থিতি কিছুটা হলেও এড়াতে পারবে আয়ারল্যান্ড। তবে ১ জানুয়ারি থেকে আয়ারল্যান্ডের সামনে হাজির হবে নতুন কিছু চ্যালেঞ্জ।  যেগুলো দেশটির বাণিজ্য সেক্টরকে আমূল পাল্টে দেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চুক্তি ছাড়াই ব্রেক্সিট সম্পন্ন হলে অনেক পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্ক যোগ হতো। বিশেষ করে কৃষি খাদ্যের ওপর এর চাপ পড়তো সবচেয়ে বেশি। এর ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হতো আয়ারল্যান্ডের কৃষি খাত, কারণ দেশটির এ সেক্টর অনেকটাই ব্রিটেনের বাজার ওপর নির্ভরশীল।

১ জানুয়ারি থেকে এ অঞ্চলে যে পরিবর্তন আসবে সেটি হয়তো হবে অনেক জটিল, বিশেষ করে ব্রিটেনের নতুন আইটি ব্যবস্থাপনা- যেগুলোর কার্যকারিতাই এখনো যাচাই করার সুযোগ হয়নি।

এহেন অবস্থায় আইটি কোম্পানিগুলোকে হয়তো সপ্তাহখানেক সময় দেয়া হবে তাদের সিস্টেম কীভাবে কাজ করবে সে সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা সরকারকে দিতে। নতুন একটি সিস্টেমের সঙ্গে পরিচিতি হতে আইটি কোম্পানিগুলোকে যে কিছুটা বেগ পেতে হবে সেটি নিঃসন্দেহে বলার অপেক্ষা রাখে না। 
চূড়ান্ত চুক্তির ফলে আয়ারল্যান্ডের সাপ্লাই চেইনও বিপর্যস্ত হওয়ার শঙ্কা রয়েছে। ব্রিটেননির্ভর আইরিশ বাণিজ্য আর কখনোই আগের অবস্থায় ফিরবে না বলে ধারণা করা হচ্ছে। পুরো আয়ারল্যান্ড দ্বীপেই (আয়ারল্যান্ড ও নর্দান আয়ারল্যান্ডের) সাপ্লাই চেইনের নির্ধারকগুলো চিরতরে বদলে গেছে। যেটি ইউরোপের অবশিষ্ট অংশের সঙ্গে সরাসরি সংযোগ স্থাপনের গুরুত্বের কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। করোনাবর্ষের সামনের দিনগুলোতে ব্রেক্সিট চুক্তি পরবর্তী নতুন চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলায় আইরিশ সরকার  কী ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করে- সেটি হবে আগামী দিনের দেখার বিষয়।  
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন