ইথিওপিয়ায় বিরোধী নেতাদের ধরিয়ে দিলে পুরস্কার

 যুগান্তর ডেস্ক 
২০ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টিপিএলএফ বা তাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের পলাতক নেতাদের ধরিয়ে দিলে পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছেন ইথিওপিয়া। 

দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যেসব নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে, তাদের ধরিয়ে দিলে ২ লাখ ৫৬ হাজার ডলার পুরস্কার দেয়া হবে। খবর বিবিসির।

গত মাসে টিপিএলএফের ৬০ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়। পরে আরও ৭৬ জনের বিরুদ্ধে জারি করা হয় পরোয়ানা। তাদের বিরুদ্ধে দেশটির তাইগ্রে অঞ্চলের প্রধান রাজনৈতিক দল তাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) সম্পৃক্ততার অভিযোগ রয়েছে।

তাইগ্রের রাজধানী মেকেলে কেন্দ্রীয় সেনাদের নিয়ন্ত্রণে আসার পর সেখানে সেনা অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ। তখন কিছু টিপিএলএফ নেতা গ্রেফতার হয়েছেন বলে জানায় ইথিওপিয়া। 

ইথিওপিয়ার ফেডারেল সেনাবাহিনী এবং টিপিএলএফের মধ্যে মাসব্যাপী লড়াইয়ে কয়েকশ’ মানুষ নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অনেক মানুষ এবং ঘরবাড়ি ছেড়ে সুদানে পালাতে হয়েছে কয়েক লাখ মানুষকে।

১৯৯১ সালে টিপিএলএফের নেতৃত্বে ইথিওপিয়া থেকে সামরিক সরকার উৎখাত করা হয়। ২০১৮ সালে আবি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগপর্যন্ত দেশটির রাজনীতিতে নিয়ন্ত্রণ ছিল এই গোষ্ঠীর। 

২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে আবি আহমেদ ক্ষমতায় আসার পর আফ্রিকার এই দেশে রাজনৈতিক অবস্থার আমূল পরিবর্তন শুরু হয়। প্রতিবেশী ইরিত্রিয়ার সঙ্গে দুই দশক ধরে চলা রক্তক্ষয়ী সংঘাতের অবসান ঘটে। 

এ কারণে ক্ষমতায় আসার মাত্র এক বছরের মাথায় নোবেল শান্তি পুরস্কার পান আবি। কিন্তু শান্তির নোবেল পেলেও আফ্রিকার দেশটিতে শান্তি ফেরাতে পারেননি তিনি। 

বরং তার বিরুদ্ধে দমন-পীড়ন ও রাজনৈতিক বিরোধীদের হয়রানির অভিযোগ উঠে। পর্যায়ক্রমে দেশটিতে অচলাবস্থা দেখা দেয়। 

প্রধানমন্ত্রী আবি বিরোধীদের দমনের পাশাপাশি শান্তি প্রতিষ্ঠার ও দেশকে আমূল বদলে দেয়ার কিছু উদ্যোগ নিয়েছেন। বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ ও অবকাঠামো সংস্কারের কাজ চলছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন