ট্রেনের ধাক্কায় ১২ জন নিহত: ডিসির তদন্ত কমিটির রিপোর্ট জমা

 জয়পুরহাট প্রতিনিধি 
২৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জয়পুরহাটের সদর উপজেলার পুরানাপৈল লেভেল ক্রসিংয়ে (রেলগেট) গত শনিবার সকালে ট্রেনের ধাক্কায় যাত্রীবাহী বাসের সুপারভাইজারসহ ১২ জন নিহত ও কমপক্ষে ৫ জন আহত হন। এ ঘটনায়  জয়পুরহাট জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ রেলওয়ের পক্ষ থেকে  দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

যার একটি জয়পুরহাটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) রেজা হাসানকে প্রধান করে ৩ সদস্যবিশিষ্ট এবং অপরটি বাংলাদেশ রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চলের পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা নাসির উদ্দিনকে প্রধান করে চার সদস্যের।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) রেজা হাসান মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসক মো. শরীফুল ইসলামের কাছে তার কমিটির তদন্ত রিপোর্ট (প্রতিবেদন) জমা দিয়েছেন।

এ তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে বুধবার জেলা প্রশাসক মো. শরীফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, মূলত ওই দিন দুর্ঘটনার সময় ওই লেভেল ক্রসিংয়ে দায়িত্বে থাকা গেটম্যানকে দায়ী করে তার কর্তব্যে অবহেলা বা গাফিলতিকেই এ দুর্ঘটনার প্রধান কারণ হিসেবে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। একই সাথে এ ধরনের মারাত্মক দুর্ঘটনা ভবিষ্যতে যাতে না ঘটতে পারে তার জন্য পেশকৃত সুপারিশে অস্থায়ীভিত্তিতে নিয়োগ দেয়া গেটম্যানকে স্থায়ীভাবে নিয়োগ প্রদান করাসহ পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালনের জন্য গেটম্যানদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ (ট্রেনিং) এবং দায়িত্ব পালনের সচেতনতা ও উদ্বুদ্ধকরণের (মোটিভেশন) ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

এছাড়াও জয়পুরহাটের গুরুত্বপূর্ণ জয়পুরহাট- দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরমুখী এ সড়কের দুর্ঘটনাস্থল পুরানাপৈল লেভেল ক্রসিংয়ের উভয় পাশে গতি প্রতিরোধক (স্পিডব্রেকার) নির্মাণের সুপারিশ করা হয়েছে এ তদন্ত প্রতিবেদনে।

উল্লেখ্য, এ দুর্ঘটনার সময় ওই লেভেল ক্রসিংয়ের (রেলগেট) দায়িত্বে থাকা গেটম্যান নয়ন মিয়া ঘুমিয়ে থাকায় রেলগেটটি খোলা ছিল।

এদিকে রেলওয়ের গঠিত অপর তদন্ত কমিটির রিপোর্ট (প্রতিবেদন) বৃহস্পতিবার রেলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছে জমা দেয়ার কথা রয়েছে।

জয়পুরহাট সদর উপজেলার পুরানাপৈল লেভেল ক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় ১২ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় ওই লেভেল ক্রসিংটির দায়িত্বে থাকা গেটম্যান নয়ন মিয়াকে ঘটনার পর দিন রোববার দায়িত্বে অবহেলার কারণে সাময়িক বরখাস্ত করে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

রোববার দুপুরে বাংলাদেশ রেলওয়ে হিলির উপসহকারী প্রকৌশলী বজলুর রশিদ এ তথ্যটি নিশ্চিত করেন।

দুর্ঘটনার সময় জয়পুরহাট রেলস্টেশনের স্টেশন মাস্টারের দায়িত্বে থাকা আবদুল হামিদ জানিয়েছিলেন, পুরানাপৈল রেল ক্রসিংয়ে নয়ন মিয়া ও রহমান নামে দুইজন গেটম্যানের দায়িত্বে ছিলেন। দুর্ঘটনার পর থেকে তাদের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি।

গত শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) সকাল ৬টা ৫০ মিনিটের সময় জয়পুরহাট সদর উপজেলার পুরানাপৈল লেভেল ক্রসিংয়ে দিনাজপুরের পার্বতীপুর থেকে রাজশাহীগামী ট্রেনের ধাক্কায় জয়পুরহাট থেকে হিলি স্থলবন্দরমুখী যাত্রীবাহী বাসের সুপারভাইজারসহ ১২ জন যাত্রী নিহত ও কমপক্ষে ৫ জন গুরুতর আহত হন। আহতদের মধ্যে তিনজনকে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতাল থেকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। যাদের মধ্যে দুর্ঘটনাকবলিত বাসের চালক মামুন হোসেনও রয়েছেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বাসচালক মামুন হোসেনের অবস্থার অবনতি হওয়ায় বর্তমানে তাকে আইসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন