নিখোঁজের ৯ দিন পর রান্নাঘরে শিশুর বস্তাবন্দি লাশ  

 যুগান্তর রিপোর্ট, সোনারগাঁ 
১০ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলায় নিখোঁজ হওয়ার ৯ দিন পর জিসান (৭) নামে এক শিশুর বস্তাবন্দি অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। 

বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার জামপুর মরিচটেক এলাকার বি.আর স্পিনিং মিলের রান্নাঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। 

নিহত জিসান উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মরিচটেক এলাকায় অবস্থিত বি.আর স্পিনিং মিলের মালি ইলিয়াস শেখের ছেলে। ইলিয়াস শেখ সন্তান জিসান ও স্ত্রী খালেদা আক্তারকে নিয়ে কারখানার ভেতরে একটি পরিত্যক্ত ঘরে বসবাস করতেন। 

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ইলিয়াস শেখের স্ত্রী খালেদা আক্তার বি.আর স্পিনিং মিলে দীর্ঘদিন যাবত বাবুর্চির কাজ করে আসছিলেন। গত ১ ডিসেম্বর দুপুরে শিশু জিসান কারখানা এলাকা থেকে নিখোঁজ হয়। এ ঘটনার পরদিন নিখোঁজ জিসানের পিতা ইলিয়াস শেখ বাদী হয়ে সোনারগাঁ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। 

থানায় সাধারণ ডায়েরি করার পর পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়েও নিখোঁজ জিসানের কোনো সন্ধান করতে পারেনি। বৃহস্পতিবার সকালে বি.আর স্পিনিং মিলের রান্নাঘর থেকে শিশু জিসানের বস্তাবন্দি অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) টিএম মোশাররফ হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ-অঞ্চল) মো. খোরশেদ আলম, সোনারগাঁ থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম ও তালতলা তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আহসান উল্লাহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বি.আর স্পিনিং মিলের একাধিক শ্রমিক জানান, বি.আর স্পিনিং মিলের বাবুর্চি ও শিশুটির মা খালেদা আক্তার কারখানার রান্নাঘরে দুর্গন্ধ পেয়ে মিল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেন। কারখানা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই শিশুর লাশ উদ্ধার করে। ঘটনাটি জানানোর পরই বাবুর্চি খালেদা আক্তার তার মোবাইল ফোন বন্ধ করে আত্মগোপনে চলে যান।

নিহত জিসানের বাবা ইলিয়াস শেখ জানান, বাড়ির পাশ্ববর্তী একটি শিল্প প্রতিষ্ঠান বি.আর স্পিনিংয়ে তিনি মালি হিসেবে কাজ করেন। তার কোনো শত্রু নেই। কীভাবে কী হল তা তিনি কিছুই জানেন না। তবে তিনি তার ছেলের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

সোনারগাঁ থানার ওসি মো. রফিকুল ইসলাম জানান, নিহত শিশুর লাশ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত ও গ্রেফতার করতে পুলিশ ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকায় অভিযান শুরু করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন