‘আমাকে বাঁচান, ছেলেটা পিছু নিয়েছে তুলে নিয়ে যাবে’

 চারঘাট (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
১৯ জানুয়ারি ২০২০, ১২:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘আমাকে বাঁচান, ছেলেটা পিছু নিয়েছে তুলে নিয়ে যাবে’
ফাইল ছবি

‘আমাকে বাঁচান, আমাকে তুলে নিয়ে যাবে। ছেলেটা আমার পিছু নিয়েছে।’– এই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের এক কলেজছাত্রী। এ সময় স্থানীয়রা তারেক আহম্মেদকে (১৯) আটক করেন।

সংবাদ দেয়া হয় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ নাজমুল হককে। এ সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে ওই তরুণকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

শনিবার রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার বাজার চৌরাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।

আটক তারেক বাঘা সরকারি কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। সে বাঘা উপজেলার আলাইপুর গ্রামের জানবার আলীর ছেলে।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা নজের আলী জানান, শনিবার চারঘাট বাজার চৌরাস্তার মোড়ে মুক্তিযোদ্ধারা বসে গল্প করছিলেন। এ সময় একটি মেয়ে এসে কান্নাকাটি করে বলেন- আমাকে বাঁচান, আমাকে তুলে নিয়ে যাবে। ছেলেটা আমার পিছু নিয়েছে। পরে বখাটে ওই ছেলেকে আটক করা হয়।

এর পর জিজ্ঞাসাবাদে তার পরিচয় জানা যায়। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সংবাদ দিলে তিনি এসে বখাটে তারেক আহম্মেদকে ছয় মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে সারদা সরকারি কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রীকে তারেক রাস্তাঘাটে বিভিন্নভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। বয়সে অনেক কম হওয়ার পর বখাটে তারেক মেয়েটির পিছু ছাড়েনি।

শনিবার আবারও উত্ত্যক্ত করলে স্থানীয়রা তাকে আটক করে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সোপর্দ করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন