চলন্ত বাসে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, একজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি
jugantor
চলন্ত বাসে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, একজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

  দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১৫:০৯:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

চলন্ত বাসে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, জবানবন্দি দিলেন চালকের সহকারী
ফাইল ছবি

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় বাসে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় গ্রেফতার বাসচালকের সহকারী আবদুর রশিদ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আসামি আবদুর রশিদকে আদালতে তুললে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাগীব নুরের আদালতে ঘটনার বিষয়ে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রোববার রাত ১টায় আসামি আবদুর রশিদকে সুনামগঞ্জের ছাতক থানার বুরাইগাঁও গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে সিলেট পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
এর পর তাকে দিরাই থানায় নিয়ে আসে পুলিশ এবং মঙ্গলবার সকালের দিকে সুনামগঞ্জ আদালতে তাকে পাঠানো হয়। পুলিশের কাছেও সে ঘটনার সময় উপস্থিত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন অফিসার্স ইনচার্জ আশরাফুল ইসলাম।

গ্রেফতার রশিদ আহমদ ছাতক উপজেলার চরমমহল্লা ইউনিয়নের কামরাঙ্গীরচর গ্রামের হাবিব আহমদের ছেলে।

প্রসঙ্গত, শনিবার বিকালে সিলেট থেকে দিরাইর উদ্দেশে ছেড়ে আসা সিলেট বাস (জ-নং-১১০৭২৩ একটি যাত্রীবাহী বাসে আত্মীয়ের বাড়ি লামাকাজি থেকে নিজ বাড়িতে আসার জন্য দিরাইগামী বাসে ওঠেন ওই তরুণী।

বাসটি সন্ধ্যায় দিরাই পৌরসভার সুজানগর গ্রামের পাশে এলে ওই তরুণী ছাড়া গাড়িতে আর কোনো যাত্রী না থাকায় বাসচালক ও হেলপার মিলে মেয়েটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

মেয়েটি প্রাণ ভয়ে বাস থেকে লাফ দিয়ে সড়কে পড়ে যান। গ্রামবাসী আহতাবস্থায় দিরাই হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এ ঘটনায় রোববার রাতেই বাসচালক, হেলপারসহ তিনজনকে আসামি করে মামলা করেন তরুণীর বাবা।

চলন্ত বাসে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, একজনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

 দিরাই (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চলন্ত বাসে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টা, জবানবন্দি দিলেন চালকের সহকারী
ফাইল ছবি

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় বাসে কলেজছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার ঘটনায় গ্রেফতার বাসচালকের সহকারী আবদুর রশিদ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে আসামি আবদুর রশিদকে আদালতে তুললে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. রাগীব নুরের আদালতে ঘটনার বিষয়ে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

রোববার রাত ১টায় আসামি আবদুর রশিদকে সুনামগঞ্জের ছাতক থানার বুরাইগাঁও গ্রাম থেকে গ্রেফতার করে সিলেট পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
এর পর তাকে দিরাই থানায় নিয়ে আসে পুলিশ এবং মঙ্গলবার সকালের দিকে সুনামগঞ্জ আদালতে তাকে পাঠানো হয়। পুলিশের কাছেও সে ঘটনার সময় উপস্থিত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন অফিসার্স ইনচার্জ আশরাফুল ইসলাম।

গ্রেফতার রশিদ আহমদ ছাতক উপজেলার চরমমহল্লা ইউনিয়নের কামরাঙ্গীরচর গ্রামের হাবিব আহমদের ছেলে।

প্রসঙ্গত, শনিবার বিকালে সিলেট থেকে দিরাইর উদ্দেশে ছেড়ে আসা সিলেট বাস (জ-নং-১১০৭২৩ একটি যাত্রীবাহী বাসে আত্মীয়ের বাড়ি লামাকাজি থেকে নিজ বাড়িতে আসার জন্য দিরাইগামী বাসে ওঠেন ওই তরুণী।

বাসটি সন্ধ্যায় দিরাই পৌরসভার সুজানগর গ্রামের পাশে এলে ওই তরুণী ছাড়া গাড়িতে আর কোনো যাত্রী না থাকায় বাসচালক ও হেলপার মিলে মেয়েটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে।

মেয়েটি প্রাণ ভয়ে বাস থেকে লাফ দিয়ে সড়কে পড়ে যান। গ্রামবাসী আহতাবস্থায় দিরাই হাসপাতালে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান।

এ ঘটনায় রোববার রাতেই বাসচালক, হেলপারসহ তিনজনকে আসামি করে মামলা করেন তরুণীর বাবা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন