ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে শ্রমিক নিহত
jugantor
ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে শ্রমিক নিহত

  ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ১৪:৫০:১৮  |  অনলাইন সংস্করণ

ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে শ্রমিক নিহত
ছবি: যুগান্তর

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে এক কয়লা শ্রমিক নিহত হয়েছেন।

সোমবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার বাসস্ট্যান্ড দুর্জয় মোড়ে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত শ্রমিকের নাম এহসানুল হক (২২)। তিনি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বাঘগাঁও গ্রামের হিরু মিয়ার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী তার চাচা আজিজুল বলেন, আমি ও আমার ভাতিজা এহসানুল হক গত ১২ দিন আগে বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশে ভৈরব আসি। কয়েক দিন কয়লা শ্রমিক হিসেবে ভৈরব ফেরিঘাটে কাজ করি।

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে আমরা দুজন বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশে ফেরিঘাট থেকে বাসস্ট্যান্ডে আসি। এ সময় এহসানুল একটি ফার্মেসিতে ট্যাবলেট কিনতে যাওয়ার সময় দুজন লোক কোনো কথা না বলেই তাকে রাস্তায় আটক করে মারধর করতে থাকে। এ সময় পকেটের টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। ঘটনা দেখে আমি বাধা দিলে ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এ সময় ভাতিজা রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

ঘটনাটি দেখেও রাস্তার লোকজন এগিয়ে আসেনি। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে নিহতের পরিবারের সদস্যরা সুনামগঞ্জ থেকে মঙ্গলবার সকালে ভৈরব থানায় এসে মরদেহ দেখার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন।

ভৈরব থানার ওসি মো. শাহিন জানান, কারা, কেন তাকে হত্যা করল তা তদন্ত করা হচ্ছে। অপরাধীদের ধরতে সিসি ক্যামেরা চেক করে শনাক্ত করার চেষ্টা করছে পুলিশ। ঘটনায় মামলা করার পর তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে ওসি জানান।

ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে শ্রমিক নিহত

 ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৯ ডিসেম্বর ২০২০, ০২:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভৈরবে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে শ্রমিক নিহত
ছবি: যুগান্তর

কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলায় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে এক কয়লা শ্রমিক নিহত হয়েছেন।

সোমবার রাত ১১টার দিকে উপজেলার বাসস্ট্যান্ড দুর্জয় মোড়ে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত শ্রমিকের নাম এহসানুল হক (২২)। তিনি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার বাঘগাঁও গ্রামের হিরু মিয়ার ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী তার চাচা আজিজুল বলেন, আমি ও আমার ভাতিজা এহসানুল হক গত ১২ দিন আগে বাড়ি থেকে কাজের উদ্দেশে ভৈরব আসি। কয়েক দিন কয়লা শ্রমিক হিসেবে ভৈরব ফেরিঘাটে কাজ করি।

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে আমরা দুজন বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশে ফেরিঘাট থেকে বাসস্ট্যান্ডে আসি। এ সময় এহসানুল একটি ফার্মেসিতে ট্যাবলেট কিনতে যাওয়ার সময় দুজন লোক কোনো কথা না বলেই তাকে রাস্তায় আটক করে মারধর করতে থাকে। এ সময় পকেটের টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। ঘটনা দেখে আমি বাধা দিলে ছিনতাইকারীরা তাকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। এ সময় ভাতিজা রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

ঘটনাটি দেখেও রাস্তার লোকজন এগিয়ে আসেনি। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে নিহতের পরিবারের সদস্যরা সুনামগঞ্জ থেকে মঙ্গলবার সকালে ভৈরব থানায় এসে মরদেহ দেখার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন।

ভৈরব থানার ওসি মো. শাহিন জানান, কারা, কেন তাকে হত্যা করল তা তদন্ত করা হচ্ছে। অপরাধীদের ধরতে সিসি ক্যামেরা চেক করে শনাক্ত করার চেষ্টা করছে পুলিশ। ঘটনায় মামলা করার পর তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে ওসি জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন